অল্প পূঁজিতে কাপড়ের ব্যবসা করার ৭ টি লাভজনক আইডিয়া।

অনেক পড়ালেখা করে বেকার বসে আছেন, অথবা বেশি পুঁজি হওয়ার কারনে আপনার স্বপ্নের কাপড়ের ব্যবসা করতে পারছেন না। এগুলো চিন্তা আমাদের মাঝে সব সময় থেকে থাকে। বেকার জীবন যে কত কষ্টের তা বুঝানো সম্ভব নয়। আমিও তেমন ভুক্তভূগি ছিলাম, বেকারের খাতায় একদিন আমারও নাম ছিল। অনেক স্বপ্ন ছিল একটা কাপড়ের দোকান দিয়ে কাপড়ের ব্যবসা করি। আমারও থাকবে একটি গার্মেন্টস শপ। তো হয়েও গেছে। কাপড়ের ব্যবসা হলো দ্রুত পরিবর্তনশীল ও অনেক প্রতিযোগিতামূলক ব্যবসা। নিত্য নতুন ডিজাইন ও কাস্টমারের চাহিদা অনুযায়ী কাজ করতে হয়। নতুন উদ্দ্যোক্তারা পেশা হিসেবে লাভজনক কাপড়ের ব্যবসাকে বেচে নিতে পারেন।

আপনি যদি নিজের ক্যারিয়ার কাপড়ের দোকানের জন্য গড়ে তুলতে চান তাহলে এই লেখাটি শুধুমাত্র আপনার জন্য। আপনি পড়ুন ও জানুন। এছাড়া তো ৭ টি কাপড়ের ব্যবসার নিয়ম দেওয়া আছেই। যে কোন একটিতে আপনার ক্যারিয়ার তুলে নিতে পারেন। অবশ্যই সব কিছু অল্প স্বল্প পূঁজি দিয়ে প্রথমে শুরু করতে পারেন।

গজ কাপড়ের ব্যবসা

গজ কাপড় পড়েনি এমন লোক খুব কম পাওয়া যায়। গজ কাপড়ের প্রতি সবার ভালবাসা অন্যরকম। তাই আপনি ব্যবসা হিসেবে গজ কাপড়ের ব্যবসাকে বেচে নিতে পারেন। এর জন্য দরকার হবে আপনার সুন্দর সুন্দর গজ কাপড়ের কালেকশন। গজ কাপড়ের হিসাবও জানতে হবে বেশ। গজ কাপড়ের ব্যবসা করতে আপনাকে বেশি পূঁজি খাটাতে হবে না। অল্প পূঁজি দিয়ে প্রথমে শুরু করতে পারেন। এরজন্য আপনাকে ভাল পজিশনে দোকান নিতে হবে। যদি কোন কসমেটিকস আইটেমের দোকানের কাছে দোকান পান তাহলে অনেক ভাল হবে। আপনি নরসিংদী, ঢাকা, গাজীপুর, নারায়নগঞ্জ সহ বিভিন্ন জায়গা থেকে গরমের সময়ে সূতি গজ কাপড় ও ঠান্ডার সময়ে (ফেলান) গরম বা মোটা সুতার কাপড় পাইকারি দামে কিনে এনে তা আপনার দোকানে খুচরা বিক্রি করতে পারেন। এভাবে আপনি গজ কাপড় বিক্রি করে আপনার ক্যারিয়ার উঠাতে পারেন।

কাপড়ের কারচুপি করে ব্যবসা

আপনি পোষাক কারচুপি করে ব্যবসা করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে কারচুপির ডিজাইন ও নকঁশা করার কাজে পারদর্শিতা হতে হবে। মোটকথা আপনাকে হাতের কাজ জানা থাকতে হবে। আপনি প্রথমে কাপড় কিনে আনুন এরপর আপনি সেই কাপড়কে আপনার হাতের কারুকাজের কারচুপি করে খুব সুন্দর করে ডিজাইন করুন। দেখবেন সেই সাধারন কাপড়টি অসাধারন করার পর অনেক দাম বেড়ে গিয়েছে। আপনি কাপড়ের কারচুপি করার ব্যবসাটি ২ ধরনের করতে পারেন একটি হলো আপনি কাপড় কিনে এনে কারচুপি করে পাইকারি বিক্রি করতে পারেন ও আপনি পাইকারি ও খুচরা বিক্রি কিভাবে আপনি শুরু করবে বিউটি পার্লারের ব্যবসা করতে পারেন। তাহলে আপনি কাপড়ের কারচুপি করে নিজের ক্যারিয়ার উঠাতে পারেন অল্পদিনের মধ্যেই।

কাপড়ের এমব্রয়ডারি করে ব্যবসা

আপনি যদি এমব্রয়ডারি করতে জানেন তাহলে এর থেকে কাপড়রের ব্যবসাটি ভাল করতে পারবেন। এরজন্য আপনাকে এমব্রয়ডারি জানতে হবে। আপনি বিভিন্ন কাপড় কিনে তাতে সুচ সুই সুতা দিয়ে এমব্রয়ডারি করে বিক্রি করতে পারেন। আপনি যখন একটি কাপড় সুন্দর করে এমব্রয়ডারি করবেন তখন অবশ্যই সেই কাপড়টিতে একটি ভিন্নরকম সৌন্দর্য চলে আসবে। তখন দেখবেন আপনার এমব্রয়ডারি করা কাপড়টি কত মূল্য হয়ে গেছে। ইচ্ছে করলে শুধুমাত্র এমব্রয়ডারি করে আপনার ক্যারিয়ার গঠন করতে পারেন। যা থেকে অন্যদের কাপড় এমব্রয়ডারি করে আয় করতে পারবেন এবং নিজের ব্যবসাও চলবে ভাল। কাপড়ের ব্যবসাটি করার জন্য এমব্রয়ডারি করে ক্যারিয়ার গঠন করতে পারেন।

Rebnal Tea

কাপড়ের ব্লক এর ব্যবসা

আপনি কাপড়ের আরেকটি খু্ব সুন্দর ব্যবসা করতে পারেন। তা হলো কাপড়ের ব্লক করে ব্যবসা। আপনি যদি একজন উদ্দ্যোক্তা হোন তাহলে কাপড়ের ব্লক করে ব্যবসা করতে পারেন। ঘরে বসেই এই ব্যবসাটি করা যায় বলে অনেক উদ্দ্যোক্তারাই ব্যবসাটি করার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করে। বর্তমান সময়ে বাটিকের উপর ব্লক করা কাজের চাহিদা প্রচুর পরিমান। এই ব্যবসা করতে গেলে আপনাকে ব্লক এর সকল কাজ জানতে হবে। ডিজাইন সমন্ধেও অনেক কিছু জানতে হবে। আপনাকে রঙ সমন্ধেও জানতে হবে। আপনি ডাইস দিয়ে টেবিলের উপরে রং দিয়ে ছাপ দিয়ে কাপড়ে ব্লক তৈরি করে সুন্দর সুন্দর ডিজাইন করে বিক্রি করতে পারবেন। আপনি যদি কাপড়ের ব্লক ডিজাইনের উদ্দ্যোক্তা হোন তাহলে আপনার মার্কেট এ চাহিদা অনেক হবে।

বাটিকের ব্যবসা

বাটিকের সাথে সমপৃক্ত ও বাটিকের প্রতি ভালবাসা নেই এমন কম লোক আছে। তাই বাটিকের প্রতি সবার আগ্রহটা একটু বেশিই ভাল। আপনি শুরু করতে পারেন বাটিকের ব্যবসা। বাটিকের কাজ করতে সুতা দিয়ে কাপড় বেধে নির্ধারিত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কাপড় রঙের পানিতে চুবিয়ে নিতে হয়। এক্ষেত্রে অনেক সময় মোম ব্যবহার করার প্রয়োজনও হয়। এই ভাবে কাপড়ে ব্লক ও বাটিকের কাজ করা যায়। এই ব্যবসাটি করা খুব সহজ ও এর চাহিদাও ব্যাপক৷ আপনি ইচ্ছে করলে কাপড় থ্রিপিছ, চাদর সহ সব ধরনের কাপড়ে বাটিকের কাজ করে বিক্রি করতে পারেন। বাটিকের কাজ একটি লাভজনক ব্যবসা, তাই আপনি আজকেই নেমে পড়তে পারেন।

বুটিক হাউজ

বুটিক হাউজ হলো বর্তমান সময়ের একটি জমজমাট ও জনপ্রিয় ব্যবসা। বর্তমান সময়ে ক্রমেই প্রসারিত হচ্ছে বুটিক হাউজের ব্যবসা। সৃজনশীল মানুষের জন্য বুটিক হতে পারে একটি আদর্শ। বর্তমান সময়ে শুধু আমাদের দেশে নয়, দেশের বাহিরেও বুটিকের চাহিদা ব্যপক। তাই আপনি বুটিক ব্যবসা করে দেশের বাহিরেও বুটিক রপ্তানি করতে পারবেন। আর বুটিকের চাহিদা সব সময় নির্ভর করে কাপড়ের সেলাই, এমব্রয়ডারি, কাপড়ের মান ও বর্তমান সময়ের চমকপ্রদ ডিজাইনের উপর। বুটিক ব্যবসা সমপূর্ণ পেশা হিসেবে যে কেউ বেচে নিতে পারেন। আর ব্যবসা শুরু করা যায় মাত্র ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকার মধ্যেই। তাই ঝাপিয়ে পড়তে পারেন আজকেই।

কাপড় ভাড়া দিয়ে ব্যবসা

বর্তমান সময়ে কাপড় ভাড়া দিয়ে ব্যবসা করাটাও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে ছেলেদের বিয়ের পোষাক যেমনঃ শেরওয়ানি, পাগড়ি, নাগরা জুতা ইত্যাদি । এসব কাপড় কেউ বেশি দাম দিয়ে কিনতে চায় না তার কারন হলো এগুলো শুধুমাত্র ১ থেকে ২ দিন পড়তে হয়। বিয়ের অনুষ্ঠান শেষ তো এসব কাপড়ের চাহিদাও শেষ। তাই অনেকেই অনুষ্ঠান কাভার করার জন্য। তাই আপনি ছোট বিনিয়োগ করে এই ব্যবসাটি বেচে নিতে পারেন। আপনার বেশিরভাগ কাস্টমার হবে পাত্র পাত্রী অথবা শুটিং এর লোক। এই ব্যবসায় আপনি দৈনিক হিসেবে ভাড়া রাখবেন, প্রথমে আপনি ৫ থেকে ৮ হাজার জামারত রাখবেন প্রতি কাস্টামের জন্য। পরে যখন ওরা ৫ থেকে ৭ দিন পর কাপড় ফেরৎ দিবে তখন আপনি ভাড়া পরিশোধ করে নিবেন।


উপরে বেশ কিছু কাপড় ব্যবসায় উপর আইডিয়া দেওয়া হয়েছে। আপনি উপরক্ত আইডিয়াগুলো মনযোগ সহকারে পড়ছেন নিশ্চয়ই। এবার ভাবতে থাকুন আপনার জন্য কোন ব্যবসাটি করতে ভাল লাগবে ও পছন্দ করেন। আপনার পছন্দের ব্যবসাটি করতে এখনেই নেমে পড়তে পারেন। অবশ্যই সফল হবেন যদি সব কিছু ঠিক থাকে। আপনি শুরু করুন এর পর মার্কেটিং করতে থাকুন অফলাইন ও অনলাইনে যেমন ফেসবুকে, টুইটারে, হোয়াটএব্সে, ইমোতে, ই-মেইল এ। আর তাছাড়া এখন অনলাইনের যুগ। আপনি আপনার দোকানটি অনলাইন প্লাটফরম এ তুলে সারাদেশে ও বিদেশে বিক্রি করতে পারেন এর জন্য উ-কমার্স এর মাধ্যমে আপনার শপটি সাজিয়ে সবার কাছে প্রকাশের মাধ্যমে অনলাইনেই বিক্রি করতে পারেন।

উদ্দ্যোক্তা বন্ধুরা তাহলে আজ এ পর্যন্তই থাকলো। আশাকরি এই লেখার মাধ্যমে কিছু বুঝতে পেরেছেন। আর আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে বা আইডিয়া থাকে তাহলে কমেন্ট এ বলতে ভুলবেন না।

পোস্টটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন

2 thoughts on “অল্প পূঁজিতে কাপড়ের ব্যবসা করার ৭ টি লাভজনক আইডিয়া।”

Leave a Comment