মালয়েশিয়া কাজের ভিসা কত ধরনের ও কি কি বিস্তারিত দেখুন

বৃহত্তর এশিয়া মহাদেশের সব থেকে ব্যবসা প্রবণ দেশ হল মালয়েশিয়া। মালয়েশিয়া কাজের ভিসা দিয়ে থাকে অনেক রকমের। আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে বা ইন্ডিয়া থেকে মালয়েশিয়া আসতে চান তাহলে আপনাকে আগেই সিলেক্ট করতে হবে আপনি কোন ধরনের ভিসা নিয়ে মালয়েশিয়া দেশে আসতে চান। আপনি ভ্রমন কিংবা কোন কাজ করার জন্য মালয়েশিয়া আসবেন সেই প্রেক্ষিত মালয়েশিয়া সরকার প্রবাসীদের জন্য ১৫ ধরনের ভিসা দিয়ে থাকে। আজ দেখে নিব কত ধরনের ভিসা ও কি কি ভিসা প্রদান করে থাকে।

ভিসা কি ?

ভিসা হল একটি অনুমতি পত্র। যাহা একটি দেশের কোন নাগরিক কে অন্য একটি দেশে প্রবেশ করার অনুমতি প্রদান করে থাকে। আপনি যদি কোন দেশে ভিসা ছাড়াই প্রবেশ করেন তাহলে আপনি একজন অবৈধ অভিবাসন হিসেবে চিন্হিত হবেন। আর আপনি যে কোন সময় আইনের আওতায় চলে আসতে পারেন। আপনার যদি ভিসা বৈধ হয় তাহলে আপনার পাসপোর্ট বা ট্রাভেল পার্মিট এর কোন পাতায় সিল বা স্টিকার দিয়ে আপনাকে ভিসা দিয়ে থাকে। আপনি দূতাবাসের মাধ্যমে বৈধ ভিসা নিতে পারবেন। আর ভিসার আর একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হল আকামা। আপনি যে দেশেই যান না কেন আকামা চেক করে সব কিছু ঠিকমত আছে কিনা যাচাই করে নিবে।

মালয়েশিয়ার ভিসা কত প্রকার ও কি কি?

মালয়েশিয়া দেশের ভিসা ২০২০ malaysia visa আপডেট অনুযায়ী মালয়েশিয়া সরকার বিশ্বের বিভিন্ন নাগরিকের জন্য ভিসা প্রদান করে থাকে। যেগুলো ভিসার মাধ্যমে আানি মালয়েশিয়া দেশে বৈধভাবে বাস করতে পারবেন। বিভিন্ন ভিসার জন্য malaysia visa fee নির্ধারন করে রেখেছেন। তাই আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়া ভিসা চান malaysia visa from bangladesh তাহলে আপনি অনলাইনের মাধ্যমে Malaysia vissa onlie এ আবেদন করতে পারেন। আপনি অবৈধ ভিসায় কখনও যদি যে কোন দেশে বাস করেন তাহলে আপনাকে আইনের আওতায় অবশ্যই পড়তে হবে।

মালয়েশিয়া স্টুডেন্ট ভিসা

মালয়েশিয়ার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় এর বিভিন্ন রকম ভিসা রয়েছে। আপনি যদি মালয়েশিয়ায় পড়া-লেখা করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে যেতে হবে। মালেয়েশিয়ার সরকার সুন্দর করে স্টুডেন্ট ভিসা সকল দেশের জন্য বরাদ্দ রেখেছে।

মালয়েশিয়া গার্ডিয়ান ভিসা

মালয়েশিয়া সরকার আর সুন্দর ভিসা প্রদান করে থাকে। সেটি হল গার্ডিয়ান ভিসা। আপনার সন্তান যদি মালয়েশিয়ার কোন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করার জন্য আগে মালেয়েশিয়ায় চলে যান। আর আপনি যদি মনে করেন ছেলে মেয়ে সেখান থেকে নিরাপদ নয় তাই আপনি গার্ডিয়ান ভিসা আবেদন করে নিয়ে নিতে পারেন। আবার এই ভিসাকে ডিপেন্টেড ভিসা বলা হয়।

মালয়েশিয়া টুরিস্ট ভিসা

আপনি যদি অপরুপ সৌন্দর্যময় মালয়েশিয়া দেখার জন্য পাগল হয়ে যান। তাহলে আপনি ঘুরে আসতে পারেন মালয়েশিয়া দেশ হতে। এর জন্য মালয়েশিয়া সরকার টুরিস্ট ভিসা প্রদান করে থাকে। আপনি টুরিস্ট ভিসার মাধ্যমে মালয়েশিয়া ভ্রমণ করতে পারেন।

মালয়েশিয়া ভিসিট ভিসা

ধরুন আপনি কোন দেশীয় কোম্পানির কাজে মালেয়েশিয়ার কোন কোম্পানির কাছ থেকে কিছু শিক্ষা লাভ করতে গেলেন অথবা আপনি আপনার দেশীয় কোম্পানী থেকে ট্রেইনিং করার জন্য মালয়েশিয়া যেতে হবে। তাহলে আপনাকে মালেয়েশিয়ার ভিসিট ভিসা নিয়ে আপনাকে সেই দেশে কিছুদিনের জন্য যেতে হবে। আপনি ভিসিট ভিসা করে চলে যান মালেয়েশিয়ায়।

মালয়েশিয়া প্রফেশনাল ভিসা

মালয়েশিয়া সরকার আপনাকে সব সময় আরো একটি ভিসা দিতে প্রস্তুুত যদি আপনি সেই দেশের কোন কোম্পানীতে উচ্চপদস্থ স্থানে জব পেয়ে থাকেন। সেটি হবে আপনার প্রফেশনাল ভিসা। এই প্রফেশনাল ভিসা আবার ৩ ক্যাটাগরির মাধ্যমে আপনাকে প্রদান করা হবে

ক্যাটাগরি ভিসা -১

আপনি যদি মালেয়েশিয়ার কোন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, ব্যবস্থাপক, মহা ব্যবস্থাপক হিসেবে যোগদান করেন তাহলে আপনি সেই দেশের ক্যাটাগরি ভিসা -১ পেয়ে যাবেন।

ক্যাটাগরি ভিসা-২

আপনি যদি মালয়েশিয়া দেশের কোন প্রতিষ্ঠানের সহকারি ব্যবস্থাপক থেকে শুরু করে নিম্ন পর্যায়ের দক্ষ শ্রমিকের আওতায় থাকেন তাহলে আপনি ক্যটাগরির ২ নাম্বার ভিসা পেয়ে যাবেন।

ক্যাটাগরি- ৩

আপনি এখন যদি মালেয়েশিয়ার কোন শ্রমিক হিসেবে থাকেন তাহলে আপনি প্রফেশনাল ভিসার ৩ নম্বর স্থানে অবস্থান করতেছেন। প্রায় বাংলাদেশি শ্রমিক সহ বিশ্বের শ্রমিকরা ৩ নম্বর ক্যাটাগরিতে ভিসা পেয়ে থাকেন।

আবার ঐ দেশের পার্সোনাল ন্যামপ্লেট থাকে বিভিন্ন ভিসার মধ্যে। এগুলো শুধু ঐ দেশের জন্য বা কোম্পিনির সুবিধার্তে করে থাকে, তবে আসলে এগুলো অফিসিয়াল নাম এমপ্লয়মেন্ট পাশ যেমন : আপনি কোন ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানির মাধ্যমে থাকেন তাহলে আপনার ভিসাকে বলা হবে এমআইডডিএ ( মালয়েশিয়ান ইনভেস্টম্যান ডেভেলপমেন্ট অথরিটি) ভিসা। আপনি যদি কোন আইটি কোম্পানির মধ্যে জব করে থাকেন তাহলে আপনাকে ভিন্ন নামের ভিসা প্রদান করা হবে তখন আপনার ভিসার নাম হবে আইটি ( ইন্টারনেট টেকনোলজি) ভিসা। এগুলো বিশেষায়িত কোম্পানিগুলো তাদের সুবিধার্থে দিয়ে দিবে।

Photo By: Onbusinesstuch.com

মালয়েশিয়া শ্রমিক ভিসা

আপনি যদি মালয়েশিয়া দেশে শ্রমিক হিসেবে কাজ করতে যান তাহলে আপনাকে শ্রমিক ভিসা প্রদান করা হবে। এই শ্রমিক ভিসা আবার বিভিন্ন নামে ও বিভিন্ন প্রকারের হয়ে থাকে। এগুলি হিসেব করা হয় ভিসার অগ্রগতির ভিত্তিতে। তাদের মধ্যে উল্ল্যেখযোগ্য ভিসা হল : কলিং ভিসা, ডিপি -১০, ডিপি -১১ সহ আরো অনেক নামে থাকে এসব শ্রমিক ভিসা।

এমএম ২ এইচ ভিসা

মালয়েশিয়ার সব থেকে সুন্দর ও খুব ভাল ভিসার মধ্যে এই এম এম ২ এইচ ( মালয়েশিয়া মাই সেকেন্ড হোম) নামের এই ভিসা। এই এমএম২এইচ ভিসা আপনি ১০ বছরের জন্য নিতে পারেন আর মেয়াদ শেষ হওয়ার পর আপনি আবার নবায়ন করতে পারবেন। মালেয়েশিয়ার মধ্যে এই ভিসাটি খুবই জনপ্রিয় একটি ভিসা।

মালয়েশিয়া পিআর ভিসা

আপনি যদি স্থায়ীভাবে মালয়েশিয়া নাগরিক হয়ে যান তাহলে আপনার জন্য অপেক্ষা করতেছে পিআর ভিসা ( পারমেন্ট রেসিডেন্স) । এই ভিসা মালয়েশিয়া সরকার খুবেই কম প্রদান করে থাকে। আবার আপনি এই ভিসা ৫ টি ক্যাটাগরির মাধ্যমে সহজেই পেতে পারেন। আপনি যদি বাংলাদেশ ও মালেয়েশিয়ার নাগরিক হতে চান তাহলে আপনাকে রেডি আইসি ভিসা প্রদান করা হবে। যাহা দ্বৈত নাগরিক হিসেবে বিবেচিত হবে। আর আপনি যদি সরাসরি শুধুই মালয়েশিয়ার নাগরিক হতে চান তাহলে আপনাকে ব্লু আইসি পেতে হবে। এর জন্য প্রথমে আপনাকে নিজ দেশের নাগরিত্ব ত্যাগ করতে হবে। এর পর আপনি বিদেশি ব্যবসায়ি, বিভিন্ন পেশাজীবী, বিভিন্ন জায়গায় বিনিয়োগকারী এবং যারা মালয়েশিয়ান নাগরিক কে বিবাহ করবেন তারা আস্তে আস্তে একটা সময়ে মালয়েশিয়ার পাসপোর্ট পেয়ে যাবেন এবং এর পর আপনি সেই দেশের পিআর লাভ করতে পারবেন।

আপনি সব সময় বৈধ ভিসায় যে কোন দেশে চলে যান। আপনি কাজের জন্য যান কিংবা ঘুরতে যান অবশ্যই আপনি সকল আইন মেনে চলুন এই প্রত্যাশা রইল। আর অনেকেই আছে যে একটি ভিসা নেওয়ার পর সেখানে গিয়ে অন্য কাজ বেচে নেয়। যেটা একদমেই অবৈধ আপনি যদি সে জন্য মালয়েশিয়ান পুলিশ এর হাতে পরে যান তাহলে আপনার নিশ্চিত জেল জরিমানা এমনকি আপনার ভিসা বাতিল হয়ে যেতেও পারে। তাই আপনি যে ভিসার মাধ্যমে আপনি মালয়েশিয়া যাবেন সেই কাজটি করবে। অনেক সময় অনেকেই নানা রকম সমস্যার সম্মুখীন হয়ে থাকেন। তারা দ্রুত সমস্যা সমাধানের জন্য সেখানে বাংলাদেশের এ্যামবাসি এর সাথে যোগাযোগ করুন। দ্রুত সমাধান পেয়ে যেতে পারেন। আর যদি আপনা মালয়েশিয়া যান তাহলে আপনাকে মালয়েশিয়া ভিসা চেক বাংলদেশে malaysia embassy in bangladesh করে সঠিক তথ্য নিয়ে চলে যেতে পারেন।

পোস্টটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Comment